<

p style=”text-align: justify;”>১৯৬২ সালের ১৭ই সেপ্টেম্বর ঐতিহাসিক শিক্ষা দিবস। শিক্ষার অধিকার আদায়ে এই দিনেই ঢাকার রাজপথে তৎকালীন পাকিস্তানী শাসকগোষ্ঠীর পুলিশের গুলিতে জীবন উৎসর্গ করেছিলেন মোস্তফা ওয়াজিল্লাহ, বাবুল প্রমুখ ছাত্রনেতারা। আর এই ৬২‘র আন্দোলনের মধ্য দিয়েই বাঙালি জনগণের কাছে পাকিস্তান রাষ্ট্রের ও শাসকদের মূল চরিত্র উদঘাটিত হয়েছিল। বাঙালি জনগোষ্ঠী উপলব্ধি করেছিলেন, পাকিস্তান রাষ্ট্র কাঠামোর ভেতর বাঙ্গালি জনগোষ্ঠীর অধিকার প্রতিষ্ঠিত হবে না।

পাকিস্তান জন্মের পর থেকে স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা পর্যন্ত অর্থাৎ ১৯৪৭ থেকে ১৯৭১ পর্যন্ত ইতিহাসে সংঘটিত নানা ঘটনার মধ্যে ১৯৬২ সালের শিক্ষা আন্দোলন গুরুত্বপূর্ণ একটি অধ্যায় হিসেবে বিবেচিত হয়। পঞ্চাশ দশকের স্বাধিকার আন্দোলন এবং ষাটের দশকের শেষ নাগাদ স্বাধিকার থেকে স্বাধীনতা আন্দোলন সৃষ্টিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে।

৬২‘র ‘শিক্ষা আন্দোলন’ হিসেবে পরিচিত এই গুরুত্বপূর্ণ আন্দোলন রাজনৈতিকভাবেও ইতিহাসে অপরিসীম গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায়। পাকিস্তানের সামরিক শাসক ফিল্ডমার্শাল আইয়ুব খানের শাসনামলে শরীফ কমিশনের নেতৃত্বে একটি শিক্ষানীতি প্রণয়ন করা হয়েছিল। যে শিক্ষানীতির বেশ কিছু বক্তব্য তৎকালীন পাকিস্তানের মানুষের আর্থ-সামাজিক অবস্থার সাথে প্রাসঙ্গিক ছিল না।

৬২‘র শিক্ষা আন্দোলনের মধ্য দিয়ে যে আন্দোলনের সূচনা হয়েছিল সেই আন্দোলনই সামরিক শাসক আইয়ুব খানের পতন, ১৯৭০ সালের পাকিস্তানের প্রথম সাধারণ নির্বাচনে বাঙালি রাজনৈতিক নেতৃত্বের নিরঙ্কুশ বিজয় এবং অবশেষে স্বাধীনতার জন্য মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়তে সমগ্র জাতিকে অনুপ্রাণিত করেছে। ১৯৫৮ সালে আইয়ুব খানের সামরিক শাসন প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে দমন-পীড়ন ও রাজনীতিকদের ধ্বংস করার সকল ষড়যন্ত্র নস্যাৎ করে দিয়েছিল। তার অত্যাচার নির্যাতনের ফলে পাকিস্তানে তথা পূর্ব পাকিস্তানে এক চরম রাজনৈতিক শূণ্যতার সৃষ্টি হয়েছিল।

১৯৬২-এর ‘শিক্ষা আন্দোলন’ আইয়ুব শাহীর ষড়যন্ত্র প্রতিরোধ করে রাজনৈতিক শূণ্যতা ভেঙ্গে গোটা পরিবেশকে রাজনীতির পক্ষে নিয়ে এসেছিল। আর সেই আন্দোলনের অনুঘটক হিসাবে ইতিহাসের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিল এ দেশের ছাত্রসমাজ। এ আন্দোলনের লক্ষ্য ছিল দেশের রাজনৈতিক নেতৃত্বকে ঐক্যবদ্ধ করে সামরিক শাসনকে আঘাত করা। তাই এ আন্দোলন ছিল সরকারের প্রতি একটি চ্যালেঞ্জ এবং গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক শক্তির জন্য পথ নির্দেশনা।

১৯৪৭ থেকে ১৯৫৮ সালে তৎকালীন পাকিস্তানে সামরিক আইন জারি পর্যন্ত সংসদীয় রাজনৈতিক কাঠামো টিকে ছিল। কিন্তু এক দশকের বেশি এ সময়কালে ষড়যন্ত্র, রাজনৈতিক অন্তর্ঘাত, হানাহানি তথা রাজনৈতিক নেতৃত্বের চরম দুর্বলতার কারণেই ১৯৫৮ সালে সামরিক শাসন জারি করা হয়েছিল। দুঃখজনক হলেও সত্য সেই সময় সামরিক শাসনের বিরুদ্ধে জনগণের ক্ষোভ বা প্রতিক্রিয়া খুব বেশি লক্ষণীয় ছিল না। রাজনৈতিক নেতৃত্বের ব্যর্থতায় হতাশ ও ক্লান্ত জনগণ অল্প সময়ের জন্য সামরিক শাসকের অনুগত হয়ে পড়েছিল। মূলত, সে সময় রাজনৈতিক ব্যর্থতার প্রকৃত কারণ পাকিস্তান রাষ্ট্রের মৌল কাঠামোর মধ্যেই নিহিত ছিল। কিন্তু, ৬২‘র আন্দোলনের মধ্য দিয়েই বাঙালি জনগণের কাছে পাকিস্তান রাষ্ট্রের ও শাসকদের মূল চরিত্র উদঘাটিত হয়েছিল। সুতরাং, সামরিক শাসন ও এর প্রতিক্রিয়াশীল প্রভাব সম্বন্ধে সম্পূর্ণ অনভিজ্ঞ জনগণ তাই আশাও করেছিল কিছুটা। কিন্তু অচিরেই তাদের সকল আশাভঙ্গ হয়ে।

১৯৪৭-৫৮ পর্যন্ত রাষ্ট্র ক্ষমতায় থাকা রাজনৈতিক নেতৃত্ব তেমন সাফল্যের পরিচয় দিতে না পারলেও এ সময় বাঙালিদের অর্জনও কম ছিল না। এ সময়ই পাকিস্তানের সংখ্যাগরিষ্ঠ বাঙ্গালি জনগণের স্বাধিকার আন্দোলনের সূচনা। ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলন ও ১৯৫৪ সালের যুক্তফ্রন্টের বিজয় ছিল বাঙ্গালি রাজনীতিক নেতৃত্বের ঐতিহাসিক অর্জন। ১৯৫২ সালে ভাষা আন্দোলনের মাধ্যমে বাঙালির জাতিসত্তা বিলুপ্তির ষড়যন্ত্র নস্যাৎ হয়, পক্ষান্তরে ১৯৫৪-র নির্বাচনে বাঙালির ক্ষমতায়নের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র প্রতিরোধে সৃষ্ট আন্দোলনের পথ উন্মোচিত হয়। পঞ্চাশের দশকের এ দু’টি ঘটনা বাঙ্গালির চেতনাবোধকে জাগ্রত করেছিল। বস্তুত এ সময় থেকেই জনগণ চিন্তায়, মননে, প্রথা-প্রতিষ্ঠানে ধর্মনিরপেক্ষতা ও অসাম্প্রদায়িকতা স্পষ্ট রূপ লাভ করতে শুরু করে।

সামরিক শাসক ফিল্ডমার্শাল আইয়ুব খানের শাসন আমলে শরীফ কমিশনের নেতৃত্বে যে শিক্ষানীতি প্রণয়ন করা হয়েছিল। তার বিরুদ্ধেই ‘৬২ সালের ১৭ই সেপ্টেম্বর ছাত্র ধর্মঘট আহবান করা হয়েছিল। গড়ে উঠেছিল দূর্বার আন্দোলন। সেই ধর্মঘট পালনকালেই মিছিলে গুলি করে পুলিশী এই হত্যাকাণ্ডের সূচনা হয়। আন্দোলনের তীব্রতায় বেগতিক হয়ে সামরিক শাসক আইয়ুব খান শরীফ কমিশনের শিক্ষানীতি বাতিল করতে বাধ্য হয়েছিলেন। ‘৬২ শিক্ষা আন্দোলনের মধ্য দিয়ে চূড়ান্ত হয় যে, পাকিস্তান রাষ্ট্র কাঠামোর ভেতর বাঙ্গালি জনগোষ্ঠীর অধিকার প্রতিষ্ঠিত হবে না।

১৯৪৭ সালে ভারত বিভক্তির মধ্য দিয়ে প্রতিষ্ঠিত পাকিস্তান প্রথমেই পূর্ব পাকিস্তানের বাঙালিদের বাংলা ভাষা ধ্বংসের চক্রান্ত শুরু করে। ১৯৪৮ সালেই পাকিস্তানের রাষ্ট্রীয় ভাষা হিসেবে উর্দুর কথা ঘোষণা করে। ১৯৫০ সালে রাজশাহীর খাপড়া ওয়ার্ডে পুলিশী হামলায় ৭ জন বামপন্থী রাজনীতিককে হত্যা ও ৩২ জনকে আহত করে। ১৯৫২ সালের ২১শে ফেব্রুয়ারি বাংলাকে রাষ্ট্র ভাষার দাবিতে গড়ে উঠা আন্দোলনে গুলিবর্ষনের মাধ্যমে হত্যা করে সালাম, বরকত, রফিক, শফিক ও জব্বারকে। ১৯৫৪ সালের নির্বাচনে বিজয়ী যুক্তফ্রন্ট সরকারকে ৯২ এর ‘ক’ ধারা জারির মাধ্যমে ক্ষমতাচ্যুত করা হয় এবং ১৯৫৮ সালে পাকিস্তানে সামরিক শাসন জারি করা হয়।

স্বাধীন পাকিস্তানে ১৯৫৬ সালের পূর্ব-মুহূর্ত পর্যন্ত একটি সংবিধান পর্যন্ত প্রণয়ন করা সম্ভব হয়নি বরং পূর্ব পাকিস্তানের জনগণের স্বার্থ-বিরোধী নানা কালাকানুন জারি করতে থাকে পাকিস্তানের শাসকেরা। শিক্ষা সংস্কৃতি ও রাজনীতির বিকশিত করার পরিবর্তে পুলিশী রাষ্ট্র কায়েমের প্রক্রিয়া হিসেবে ১৯৫৮ সালে সামরিক শাসন জারি করা হয়। এসকল ঘটনার কারণেই পূর্ব পাকিস্তানের সচেতন এবং রাজনৈতিক মহলে প্রচণ্ড ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছিল, সেই ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ হিসেবেই ১৯৬২ সালের ঐতিহাসিক ছাত্র আন্দোলনের সূত্রপাত ঘটেছিল।

শিক্ষাক্ষেত্রে গৃহীত সরকারের বৈষম্যমূলক নীতি এবং পূর্ব পাকিস্তানের ক্রমবর্ধমান অনগ্রসরতা সত্ত্বেও তিন বছরের সামরিক সন্ত্রাস ও জুলুমের ফলে আন্দোলনের জন্য রাজনৈতিক ইস্যুই গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছিল। এ জন্য পরোক্ষ প্রস্তুতি ও প্রত্যক্ষ পরিকল্পনাও গ্রহণ করেছিল সেসময় এদেশের ছাত্র সমাজ। পরোক্ষ প্রস্তুতি হিসেবে ১৯৬১ সালের শহীদ দিবস উদযাপনের সাংগঠনিক উদ্যোগ গুরুত্বপূর্ণ ছিল। ১৯৬১ সালের শহীদ দিবসকে সামনে রেখে সামান্য হলেও রাজনৈতিক শক্তি ও ছাত্রসম্প্রদায় প্রস্তুতি গ্রহণ করে। ছাত্র সংগঠনসমূহও এ ব্যাপারে অগ্রসর ভূমিকা পালন করেছিল।

সরকারের গোয়েন্দা সংস্থার রিপোর্ট অনুযায়ী ছাত্র ইউনিয়নের উদ্যোগে ছাত্রলীগ, ছাত্র শক্তি ও ছাত্র ফেডারেশনের এক যৌথ সভা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের সহ-সভাপতি জাহান আরা আখতার সভাপতিত্ব অনুষ্ঠিত হয়। ছাত্র রাজনীতি সাংগঠনিকভাবে নিষিদ্ধ থাকায় এ সভায় নির্বাচিত ছাত্র প্রতিনিধিদেরকে সরকারের নিকট ২১ ফেব্রুয়ারি ভাষা শহীদ দিবস হিসেবে সরকারি ছুটির দিন ঘোষণার দাবি জানাতে বলা হয়। তাছাড়া যথাযথ মর্যাদায় শহীদ দিবস পালনের কর্মসূচিও গৃহীত হয় এবং ছাত্ররা তা যথাযথভাবে পালন করে। সামরিক শাসনের আওতায় পূর্ববর্তী দু’বছরের তুলনায় ১৯৬১ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি উদযাপনে অধিকতর ব্যাপক কর্মসূচি পালন ছাত্রদের সামরিক শাসন উপেক্ষা করার মানসিক প্রস্তুতিরই ইঙ্গিত দেওয়া হয়।

১৯৫৮ সালে পাকিস্তানে সামরিক শাসন জারির পর সকল রাজনৈতিক দল ও ছাত্র সংগঠনসহ সব ধরনের সাংস্কৃতিক সামাজিক সংগঠনের তৎপরতা বেআইনি করে সকল ধরনের মৌলিক মানবাধিকার ও ন্যায়বিচারের সুযোগ কেড়ে নেওয়া হয়েছিল, চলেছিল চরম দমননীতি। এরইমধ্যে ষাট সালের দিকে ছাত্রলীগ ও ছাত্র ইউনিয়ন নেতারা গোপন সমঝোতা ও যোগাযোগ রেখে নিজ নিজ সংগঠন গোছানোর এবং অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য আন্দোলন গড়ে তোলার প্রচেষ্টা শুরু করেন। এভাবে ছাত্র সংগঠন দু’টি ধীরে ধীরে সংগঠিত হতে থাকে এবং সাধারণ ছাত্রদের সঙ্গেও যোগাযোগ গড়ে তোলে।

তৎকালীন দুই বৃহৎ ছাত্র সংগঠন ছাত্রলীগ ও ছাত্র ইউনিয়ন এবং ডাকসু ও বিভিন্ন হল ও কলেজ ছাত্র সংসদের নির্বাচিত প্রতিনিধিদের সমন্বয়ে সাধারণ ছাত্র সমাজের মতামতের প্রতিফলন ঘটিয়ে ছাত্র আন্দোলনের বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করা হয়। যার ফলে সকল আন্দোলন ও কর্মসূচির প্রতি সাধারণ ছাত্র সমাজের সমর্থন ও অংশগ্রহণ ছিল স্বতঃস্ফূর্ত।

১৯৬২ সালের ১ ফেব্রুয়ারি থেকে সূচিত আন্দোলন দমন করার জন্য গ্রেফতার, মামলা, হয়রানি, নির্যাতন, এমনকি বেত্রাঘাতসহ বর্বরোচিতভাবে নানা ধরনের শারীরিক নির্যাতন চালানো হয়। ১৭ সেপ্টেম্বর ছাত্র-জনতার ব্যাপক আন্দোলন ও হরতাল কর্মসূচি ঠেকানোর জন্য চরম নির্যাতনমূলক পথ গ্রহণ করা হয়। ঐদিন ঢাকাসহ দেশের সকল শহরের রাজপথে বিরাট বিক্ষোভ মিছিল চলতে থাকে। লাঠিচার্জ, টিয়ারগ্যাস ইত্যাদি সেই ক্ষোভ-বিক্ষোভ দমন করতে পারেনি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্জন হল থেকে ছাত্রদের একটি বিক্ষুব্ধ মিছিল আব্দুল গণি রোড হয়ে অগ্রসর হলে পুলিশ পেছনে থেকে অতর্কিতে মিছিলের ওপর গুলিবর্ষণ করে। সেদিন পুলিশের গুলিতে বাবুল, মোস্তফা, ওয়াজিউল্লাহ শহীদ হন। সারাদেশে পুলিশ ও ইপিআর-এর নির্যাতন ও গুলিতে বহু ছাত্র-জনতা আহত হয়।

১৭ সেপ্টেম্বরের ঘটনা, ছাত্র আন্দোলন আরও বেগবান হয়ে ওঠে। ছাত্র সমাজ বিক্ষোভে ফেটে পড়ে। সাধারণ জনগণ ছাত্র সমাজের প্রতি আরও দৃঢ় সমর্থন ব্যক্ত করেন। সারাদেশে তিন দিনব্যাপী শোকের কর্মসূচি ঘোষণা করে আন্দোলনের ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখা হয়। ২৪ সেপ্টেম্বর পল্টন ময়দানে এক ছাত্র জনসভা অনুষ্ঠিত হয়। জনগণের সমর্থিত ছাত্র সমাজের ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন দমন করতে ব্যর্থ হয়ে আইয়ুবের সামরিক সরকার তথাকথিত ‘জাতীয় শিক্ষানীতি’ স্থগিত ঘোষণা করতে বাধ্য হয়।

১৯৬২ সালে আইয়ুব খানের সামরিক শাসনের বিরুদ্ধে গণতন্ত্র ও শিক্ষার অধিকার এবং বিশেষ করে পাকিস্তানি শাসক শ্রেণির স্বার্থে প্রণীত গণবিরোধী সাম্প্রদায়িক, প্রতিক্রিয়াশীল শিক্ষানীতির বিরুদ্ধে একটি বিজ্ঞানভিত্তিক, গণমুখী, অসাম্প্রদায়িক প্রগতিশীল, আধুনিক শিক্ষানীতি প্রণয়ন ও বাস্তবায়নের লক্ষ্যে ঐতিহাসিক ছাত্র আন্দোলনের পথ ধরেই ছাত্রসমাজ পরবর্তীকালে সর্বদলীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের ১১ দফার ভিত্তিতে ৬৯-এর গণঅভ্যুত্থানের মধ্য দিয়ে মুক্তিযুদ্ধে গৌরবময় ভূমিকা পালনে সক্ষম হয়েছিল।

লেখক: মহাসচিব, বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি- বাংলাদেশ ন্যাপ; আহ্বায়ক, জাতীয় ‘কৃষক-শ্রমিক মুক্তি আন্দোলন

The post ৬২’র শিক্ষা আন্দোলন বনাম বাঙালি জনগোষ্ঠীর উপলব্ধি

appeared first on Sarabangla | Breaking News | Sports | Entertainment.

Leave a Reply

%d bloggers like this: